• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ২২শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১২ই জিলকদ, ১৪৪২ হিজরি

বিকাল ৩:৫৭

করোনার হটস্পট মিরপুরের অলিগলিতে মানুষের ভীড় !


Share with friends

প্রকাশিত: ১০:২২ পূর্বাহ্ণ, ১৪ এপ্রিল ২০২০

মহামারী করোনায় সন্ধ্যার পর ঘর থেকে বের না হওয়ার নির্দেশ মানছে না মিরপুরের বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দারা। সন্ধ্যা ৬টার পরও মিরপুরের বিভিন্ন এলাকার দোকানপাট খোলা রাখা হচ্ছে। বিনা কারণে বাসা থেকে বের হয়ে রাস্তার মোড়ে আড্ডা দিচ্ছেন বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দারা। সোমবার (১৩ এপ্রিল) সন্ধ্যার পর মিরপুরের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে। এছাড়া সকালেও ভির লেগেই থাকে। আইইডিসিআরের তথ্যে দেখা যায়, ঢাকায় করোনা হটস্পট হচ্ছে মিরপুর। সেখানে ৫২ জন কভিড-১৯ আক্রান্ত হয়েছেন।

করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে সন্ধ্যা ৬টার পর বাসা থেকে বের না হতে সরকারিভাবে নির্দেশনা দেয়া হলেও, তা উপেক্ষা করে মিরপুর-২, মিরপুর-১০, সনি সিনেমা হলের আশপাশসহ বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দারা বাসা থেকে বের হয়ে ঘোরাফেরা করছেন। অনেকে আবার দল বেঁধে প্রধান সড়কের আশপাশে আড্ডা দিচ্ছে। কেউ কেউ আবার পুলিশের আনাগোনা দেখলে সটকে পড়ছেন, পুলিশ চলে গেলে আবারও জড়ো হচ্ছেন। মিরপুরের বিভিন্ন এলাকার অলিগলিতে সন্ধ্যার পরও দোকানপাট খোলা রাখা হচ্ছে। সেসব দোকানে মানুষের ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। কোনো দোকান অর্ধেক খোলা রেখে মালামাল বিক্রি করতে দেখা গেছে। জনতা হাউজিংয়ে সন্ধ্যার পর খোলা একটি কসমেটিকের দোকানে বসা ইব্রাহিমের কাছে জানতে চাইলে তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, কেউ বাধা দেয় না তাই দোকান খোলা রাখা হয়েছে। মালিক দোকান খোলা রেখে বেচাকেনা করতে বলছেন। পুলিশ দোকান বন্ধ করতে চাইলে তাকে (দোকান মালিক) ফোন দিতে বলেছেন বলেও জানান তিনি। সন্ধ্যায় মিরপুর জনতা হাউজিংয়ের ভেতরে দাঁড়িয়ে থাকা একদল তরুণকে আড্ডা দিতে দেখা যায়। কেন বাইরে রয়েছেন জানতে চাইলে তারা বলেন, সারাদিন বাসায় ছিলাম, বিকেলের পর অনেকে ঘরের বাইরে বের হয়ে একটু আড্ডা দিচ্ছেন।

সন্ধ্যা ৬টার পর বাসার বাইরে না আসার নির্দেশনা জানেন কিনা জানতে চাইলে তারা বলেন, জানি, কিন্তু সারাদিন তো আর বাসায় থাকতে ভালো লাগে না তাই বের হয়েছি। কিছুক্ষণ পরে বাড়িতে যাবেন বলে জানান তারা। এই এলাকায় রয়েছে দুটি পুরনো বস্তি। একটিতে ১৮৫টি ঘরে প্রায় ৭০০ মানুষ বসবাস করছেন। অন্যটিতে ১৩০টি ঘরে প্রায় ৪০০ জন মানুষের বসবাস। এসব বস্তির মানুষ দিনরাত বাইরে ঘোরাফেরা করে থাকেন। এ কারণে গভীর রাত পর্যন্ত এখানের দোকানপাট খোলা রাখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন বস্তিবাসী। এ বিষয়ে মিরপুর বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মোস্তাক আহমেদ সোমবার সন্ধ্যায় গনমাধ্যমকে বলেন, সন্ধ্যার পর বাইরে থাকা মানুষগুলো পুলিশের সঙ্গে লুকোচুরি খেলে। পুলিশ গেলে সরে পড়ে, চলে গেলে আবার রাস্তায় বেরিয়ে যায়। বস্তির মানুষদের ঘরের ভেতরে রাখা যায় না, কারণে অকারণে তারা ঘরের বাইরে বের হয়ে আড্ডায় মেতে যায়। তিনি আরো বলেন, আমাদের পুলিশ রাস্তায় ও পাড়া-মহল্লায় দায়িত্ব পালন করছে। বিনা কারণে সন্ধ্যার পর বাসার বাইরে কাউকে পাওয়া গেলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। তবে সন্ধ্যার পর এলাকায় কোনো দোকানপাট খোলা থাকার সুযোগ নেই। কেউ এমন কাজ করলে তাকে থানায় ধরে আনতে তার অধিনস্ত পুলিশ কর্মকর্তাকে নির্দেশনা দেবেন বলেও জানান তিনি।

আরএএস/সাএ