• ঢাকা
  • সোমবার, ২৬ অক্টোবর, ২০২০ | ১০ কার্তিক, ১৪২৭ | ৯ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪২ হিজরি

বিকাল ৪:১৬

কেঁদে বুক ভাসাচ্ছেন রিফাতের মা, চান ন্যায়বিচার


Share with friends

এক বছর তিন মাস আগে ছে’লে রিফাত শরীফকে হারিয়েছেন মা। ছে’লে হা’রানোর দিন থেকে সাজানো সংসারে নেমেছে অশ্রুধারা। রিফাতকে হা’রানোর দিন থেকে মা ডেইজি বেগমের কা’ন্না থামছেই না।

Home2 Side ads

বাড়ির দরজায় রিফাতের কবর। প্রতিদিন সকাল-বিকেল দুবার ছে’লের কবর জিয়ারত করে মা প্রার্থনা করেন- রিফাতকে আল্লাহ যেন জান্নাতবাসী করেন। আর খু’নিরা যেন দৃষ্টান্তমূলক শা’স্তি পায়।

Home2 Side ads
Home2 Side ads

বহুল আ’লোচিত বরগুনার রিফাত শরীফ হ’ত্যা মা’মলার রায় ঘোষণা হবে আগামীকাল বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর)। মঙ্গলবার বিকেলেও রিফাতের মা ডেইজি বেগম ছে’লের কবর জিয়ারত করেছেন।

রিফাতের বোন ইস’রাত জাহান মৌ বলেন, ভাইয়ার খু’নের মা’মলার রায় হবে বুধবার। মঙ্গলবার সকাল থেকেই মা কাঁদছেন। কোনোভাবেই তার কা’ন্না থামাতে পারছি না।

মৌ বলেন, ভাইয়াকে আর ফিরে পাব না। তবে তার খু’নিদের কঠোর শা’স্তি হলে আম’রা একটু সান্ত্বনা পাব। আম্মুও স্বস্তি পাবেন। অ’প’রাধীদের এমন শা’স্তি হওয়া উচিত যাতে ভবিষ্যতে আর কোনো মায়ের বুক খালি না হয়।

২০১৯ সালের ২৬ জুন বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে শত শত লোকের উপস্থিতিতে স্ত্রী’র সামনে রিফাত শরীফকে (২৫) কু‌‌’পিয়ে হ’ত্যা করা হয়। পরে রিফাতকে কু‌‌’পিয়ে হ’ত্যার একটি ভিডিও ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে ভাই’রাল হয়।

এ ঘটনায় রিফাতের বাবা আবদুল হালিম দুলাল শরীফ বাদী হয়ে ১২ জনকে আ’সামি করে বরগুনা থা’নায় হ’ত্যা মা’মলা করেন; এতে মিন্নিকে প্রধান সাক্ষী করা হয়েছিল। এরপর আরেকটি ভিডিও ভাই’রাল হয়। ওই ভিডিও দেখে মিন্নির বাবার বি’রুদ্ধেও মা’মলা করার কথা জানান রিফাতের বাবা।

এরই মধ্যে মা’মলার প্রধান সাক্ষী মিন্নিকে গত ১৬ জুলাই রাতে গ্রে’ফতার করে পু’লিশ। পু’লিশের ত’দন্তে স্বামী হ’ত্যায় ফেঁ’সে যান মিন্নি। পরদিন তাকে পাঁচদিনের রি’মান্ডে নেয়া হয়। দুদিন পরে মিন্নিকে আ’দালতে হাজির করে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানব’ন্দি রেকর্ড করা হয়।

রিফাত হ’ত্যা মা’মলার প্রাপ্তবয়স্ক আ’সামিরা হলেন- রাকিবুল হাসান রিফাত ফরাজি, আল কাইউম ওরফে রাব্বি আকন, মোহাইমিনুল ইস’লাম সিফাত, রেজওয়ান আলী খান হৃদয় ওরফে টিকট’ক হৃদয়, মো. হাসান, মো. মু’সা, আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি, রাফিউল ইস’লাম রাব্বি, মো. সাগর এবং কাম’রুল ইস’লাম সাইমুন।

১৬ সেপ্টেম্বর মা’মলার দুই পক্ষের যু’ক্তিতর্কের শুনানি শেষে বরগুনার জে’লা ও দায়রা জজ আ’দালতের বিচারক মো. আসাদুজ্জামান রায়ের জন্য বুধবার দিন ধার্য করেন।

এর আগে ১ সেপ্টেম্বর ২৪ জনকে অ’ভিযু’ক্ত করে প্রাপ্ত ও অ’প্রাপ্তবয়স্ক দু’ভাগে বিভক্ত করে আ’দালতে প্রতিবেদন দেয় পু’লিশ। এর মধ্যে প্রাপ্তবয়স্ক ১০ জন এবং অ’প্রাপ্তবয়স্ক ১৪ জনকে আ’সামি করা হয়। মা’মলার চার্জশিটভুক্ত প্রাপ্তবয়স্ক আ’সামি মো. মু’সা এখনও পলাতক।

চলতি বছরের ১ জানুয়ারি রিফাত হ’ত্যা মা’মলার প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আ’সামির বি’রুদ্ধে চার্জ গঠন করেন বরগুনা জে’লা ও দায়রা জজ আ’দালত। এরপর ৮ জানুয়ারি থেকে প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আ’সামির বি’রুদ্ধে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু করেন আ’দালত। মোট ৭৬ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়েছে এ মা’মলায়।

single page ads 3