• ঢাকা
  • সোমবার, ২১শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৭ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১১ই জিলকদ, ১৪৪২ হিজরি

রাত ৩:৩০

জ্বর ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে মারা গেলেন স্কুল শিক্ষক


Share with friends

প্রকাশিত: ৩:০৫ অপরাহ্ণ, ৯ এপ্রিল ২০২০

মোস্তফা কামাল, সখীপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি: টাঙ্গাইলের সখীপুরে জ্বর ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে বুধবার রাতে (৮এপ্রিল) এক স্কুল শিক্ষকের (৫৫) মৃত্যু হয়েছে। উপজেলার কাকড়াজান ইউনিয়নের দিঘীরচালা গ্রামের নিজ বাড়িতে তিনি মারা যান। তিনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ছিলেন কি না, তা নিশ্চিত হতে আজ (৯এপ্রিল) বৃহস্পতিবার সকালে নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকার রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানে (আইইসিডিআর) পাঠানো হয়েছে। তবে ওই গ্রামের লোকজনের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে বলে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান জানিয়েছেন। মারা যাওয়া ওই শিক্ষকের নাম শামসুল হক। তিনি বড়হামিদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ছিলেন।

করোনাভাইরাস পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহের পর বাড়ির লোকজনকে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশ দিয়েছে উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। এদিকে লক্ষণগুলো করোনাভাইরাসের মতো হওয়ায় গ্রামের লোকজনের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় কাঁকড়াজান ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তারিকুল ইসলাম। তিনি বলেন, প্রশাসনের পক্ষ থেকে গ্রামটিকে লকডাউন ঘোষণা করা না হলেও গ্রামের মানুষজন আতঙ্কে আছেন বিধায় তাঁরা নিজেরাই গ্রামটিকে লকডাউন ঘোষণা করেছেন।

উপজেলা প্রশাসন এবং স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, মারা যাওয়া ওই শিক্ষকের আগে থেকেই শ্বাসকষ্ট ছিল। দু-তিন দিন ধরে তিনি জ্বরে ভুগছিলেন। এরপর তাঁর শ্বাসকষ্ট আরও বেড়ে গিয়েছিল। এ অবস্থায় বুধবার (৮এপ্রিল) রাত ১০টার দিকে তিনি নিজ বাড়িতে মারা যান। খবর পেয়ে রাতেই ইউপি চেয়ারম্যান ও সখীপুর থানার পুলিশ সদস্যরা ওই বাড়িতে যান।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আবদুস সোবহান বলেন, উপসর্গ থেকে ওই শিক্ষক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ছিলেন বলে সন্দেহ করছেন এলাকার লোকজন। বিষয়টি নিশ্চিত হতে মৃত ব্যক্তির শরীর থেকে নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষার জন্য নমুনা ঢাকার আইইসিডিআরে পাঠানো হয়েছে। এ ছাড়া সতর্কতার অংশ হিসেবে ওই বাড়ির সব লোকজনকে কোয়ারেন্টিনে থাকতে বলা হয়েছে।

এআইআ/এইচি