• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ২২শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১২ই জিলকদ, ১৪৪২ হিজরি

বিকাল ৫:২১

দুধের বাচ্চা বাসায় রেখে, হাসপাতা’লে করো’না রো’গীদের সেবা দিচ্ছেন ডা.আশা!


Share with friends

নাটোর সদর হাসপাতা’লের চিকি’ৎসক ডা. আয়শা সিদ্দিকা আশা। আউটডোর মেডিকেল অফিসার হিসেবে গাইনি বিভাগে রো’গীদের চিকিৎ’সা সেবা দিতেন।

ডা. আয়শা সিদ্দিকা আশার দুই সন্তান। বড় সন্তানের বয়স ৩ বছর আর ছোট সন্তানের বয়স ১১ মাস। দুটি সন্তানই অ’সু’স্থ। তারপরেও তাদের বাসায় রেখে হাসপাতা’লে রো’গী দে’খতে যান আশা।

বর্তমানে দেশের এই প’রিস্থিতিতে অ’তিরি’ক্ত দায়িত্ব হিসেবে নিয়মিত করো’না কেয়ারের রো’গীদের সেবা দিচ্ছেন তিনি। দুধের সন্তানদের বাসায় রেখে রো’গীদের সেবা দেওয়ার জন্য প্রতিনিয়ত হাসপাতা’লে ছুটে যান হাসপাতা’লে।নাটোরের এই চিকি’ৎসক দুই সন্তানসহ পরিবারের জন্য দোয়া চেয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন।

নাটোর সদর হাসপাতা’লে চিকিৎ’সা নিতে আসা একজন সেবাগ্রহীতা ইয়াসিনপুর কলেজে’র অধ্যক্ষ সাজেদুর রহমান বলেন, বম’র্তমান এই সময়ে ভ’য়ে অনেক চিকি’ৎসক হাসপাতা’লে আ’সছেন না। কিন্তু ডাক্তার আশা অ’সু’স্থ দুই সন্তানকে বাসায় রেখে করো’না ইউনিটে আসা রো’গীদের সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। দেশ ও দেশের মানুষের প্রতি তার এই মমত্ববোধ সত্যিই একটি উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত বলে মনে করেন তিনি।

ডা. আয়শা সিদ্দিকা আশা জা’নান, ফেসবুক স্ট্যাটাসে তিনি সকলের মঙ্গলকামনা করে অ’সু’স্থ দুই সন্তানের জন্য সকলের কাছে দোয়া চেয়েছেন। এ ব্যাপারে নাটোরের সিভিল সার্জন ডা. মিজানুর রহমান বলেন, চিকি’ৎসকদের যতটা সম্ভব নি’রাপত্তার মধ্যে থেকে চিকিৎ’সা সেবা দিচ্ছেন।

চলমান এই প’রিস্থিতিতে কোন ভাবে কর্তব্যের অবহেলা করার সুযোগ নেই। তিনি নিজে যতক্ষণ সু’স্থ থাকবেন করো’না ইউনিটের রো’গীদের সেবা অব্যা’হত থাকবে বলে জানিয়েছেন।নাটোরে করো’না উ’পসর্গ বেশ কিছু রো’গী পেয়েছি।

সদর হাসপাতা’লের করো’না আইসোলেশনেও রেখেও রো’গীদের চিকিৎ’সা সেবা দেয়া হচ্ছে। এ পর্যন্ত জে’লায় ১৭ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। এদের মধ্যে কেউ করো’না য় আক্রা’ন্ত হননি।