• ঢাকা
  • সোমবার, ২১শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৭ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১১ই জিলকদ, ১৪৪২ হিজরি

রাত ৩:২৫

পায়ে দেখা যাচ্ছে করোনায় আক্রান্তের চিহ্ন!


Share with friends

সারা বিশ্বে করো’নায় আ’ক্রান্তের সংখ্যা ও মৃ’ত্যুর সংখ্যা সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে। করো’নাভাই’রাসে আ’ক্রান্ত হলে সাধারণ কয়েকটি লক্ষণ দেখা দেয়। প্রথমে শুকনো কাশি ও জ্বর লক্ষ্য করা যায়। পরে এই মা’রণ ভাই’রাস ফুসফুসে তা’ণ্ডব চালায়। করো’নার লক্ষণ দেখা দিলেই রোগীকে চিকিৎসকের পরাম’র্শে কোয়ারেন্টিনে বা আইসোলেশন থাকতে বলা হচ্ছে।

করো’না নিয়ে প্রতিদিনই নতুন নতুন তথ্য জানাচ্ছেন গবেষকরা। কয়েক দিন আগে জানানো হয়, কোনো লক্ষণ দেখা দেওয়া ছাড়াও যেকোনো ব্যক্তি করো’নায় আ’ক্রান্ত হয়ে থাকতে পারেন। আর এবার বলা হচ্ছে, পায়েও দেখা দিতে পারে করো’নায় আ’ক্রান্ত হওয়ার চিহ্ন। আ’ঘাতের চিহ্নের মতো দেখা দিতে পারে করো’নায় আ’ক্রান্ত হওয়ার চিহ্ন। পায়ের আঙুলে আ’ঘাত পাওয়ার পর যেমন অবস্থা দেখা দেয়; করো’নায় আ’ক্রান্ত হলেও তেমন আকার ধারণ করতে পারে।

করো’নায় ইউরোপের সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ স্পেন। দেশটির চিকিত্সা বিশেষজ্ঞরা বর্তমানে ত’দন্ত করছেন এই বিষয়টি নিয়ে। যাদের মধ্যে ভাই’রাস রয়েছে তাদের পায়ে ক্ষুদ্র ক্ষত চিহ্ন বা আ’ঘাতের চিহ্নের মতো কিছু রয়েছে কি-না তা খতিয়ে দেখছেন তারা। গত বৃহস্পতিবার স্পেনের জেনারেল কাউন্সিল অব অফিশিয়াল পডিয়েট্রিস্ট (পায়ের যত্নের বিশেষজ্ঞ) কলেজ একটি বিবৃতি শেয়ার করেছে। সেখানে বলা হয়, বেশ কয়েক জন করো’নাভাই’রাসের আ’ক্রান্ত রোগীর পায়ে ক্ষত রয়েছে।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, করো’নায় আ’ক্রান্ত রোগীদের পায়ে কয়েকটি চিহ্ন পাওয়া গেছে। এগুলো দেখতে বেগুনি বর্ণের আ’ঘাতের চিহ্ন ও ক্ষতের মতো। চিকেনপক্স, হাম বা চিলব্লেনের সাথে খুব মিল রয়েছে এসব চিহ্নের। সাধারণত পায়ের আঙুলের ওপর এগুলো দেখা গেছে। তবে কোনো রকম চিহ্ন না রেখেই এগুলো আবার ভালো হয় যায়।

বিবৃতিতে আরো বলা হয়েছে, এটি এক ধরনের কৌতূহলী আবিষ্কার। চর্ম বিশেষজ্ঞ ও পোডিয়াট্রিস্টদের মতে, ইতালি ও ফ্রান্সের পাশাপাশি স্পেনের অসংখ্য কভিড-১৯ রোগীর মধ্যেও এই ক্ষত চিহ্ন লক্ষ্য করা গেছে।

করো’নায় আ’ক্রান্ত কি’শোর ও শি’শুসহ অল্প বয়স্ক ব্যক্তিদের মধ্যে এই ক্ষতগুলো বেশি দেখা গেছে। তবে কয়েক জন প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যেও এগুলো ছিল। এই বিয়ষটি নিয়ে বিস্তর গবেষণা করা হবে বলে জানানো হয়েছে বিবৃতিতে।

করো’না আ’ক্রান্তের পায়ের চিহ্নটি প্রথম ধ’রা পরে ১৩ বছর বয়সী এক কি’শোরের শরীরে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হয়েছিল, কি’শোরটির পায়ে হয়তো মাকড়সা কামড়েছিল। কিন্তু কয়েক দিন পরই তার মধ্যে করো’নার লক্ষণ দেখা দিতে শুরু করে। এরপর বিষয়টি নজরে আসে গবেষকদের।

সূত্র : মিরর।