• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ২২শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১২ই জিলকদ, ১৪৪২ হিজরি

বিকাল ৪:৫৩

হাত ধোয়ার পর ক্রিম লাগান, না হলে ঢুকতে পারে জীবাণু!


Share with friends

বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করো’না ভাই’রাসকে দূরে রাখার জন্য বার বার হাত ধোয়ার পরাম’র্শ দেয়া হচ্ছে প্রতিনিয়ত। তবে অ’তিরিক্ত হাত ধোয়ায় হাতের ত্বক হয়ে পড়ছে শুষ্ক, রুক্ষ আর খসখসে। সুতরাং হাত ধোয়ার পরে অবশ্যই ক্রিম লাগিয়ে নিতে হবে।

শীতকালে হাত-পা খসখসে হয়ে যায় অনেক সময় ফেটেও যায়। এ রকম হাত কেবল অস্বস্তিকরই নয়, এটি বেদনাদায়কও হতে পারে, এমনটা এখন অ’তিরিক্ত হাত ধোয়ার কারণেও হতে পারে।

করো’না ভাই’রাসকে দূরে রাখতে সর্বত্র বেশি বেশি হাত ধোয়ার কথা বলা হচ্ছে৷ এখন এত বেশি হাত ধোয়ার ফলে হাতের ত্বক যেমন শুষ্ক হতে পারে, তেমনি হাতে অ’তিরিক্ত হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহারেও ত্বকের চুলকানি, জ্বালা বা অন্যান্য সমস্যা হতে পারে, আমাদের চারিপাশে অসংখ্য জীবাণু রয়েছে, যা ফাটা বা শুষ্ক হাত দিয়ে ধ’রার মাধ্যমে শরীরে প্রবেশ করে থাকে।

আমাদের দেহ ফ্যাট উত্পাদন করতে প্রায় চার সপ্তাহ সময় নেয় সুতরাং যদি কোনো ক্রিম ব্যবহার না করে সারাক্ষণ শুধু হাত ধোয়া হয় তাহলে হাতের ত্বক ক্ষতিগ্রস্ত হবে আর এ কারণে হাত ধোয়ার পরে ফ্যাটযু’ক্ত ক্রিম বা লোশন ব্যবহার করা সকলের জন্যই জরুরি।

অনেক ডাক্তার বলছেন, হ্যান্ড স্যানিটাইজার বা জীবাণুনাশকের চেয়ে হাত ধোয়ার সময় সাবান ব্যবহার কারাই ভালো ৷ তবে যারা অ’সুস্থ বা যাদের ইমিউন সিস্টেম দুর্বল, তাদের জীবাণুনাশক ব্যবহার করা উচিত।

মানুষের বয়স যত বাড়ে, ত্বক তত কম আদ্রতা সংরক্ষণ করতে পারে৷ তাদের শরীরের নিজস্ব ফ্যাট উতপাদনও কমে যায়৷ তাই তাদের ঘনঘন হাতে ক্রিম লাগানো উচিত।

নিজেই তৈরি করে নিতে পারেন হাতের ক্রিম। যেমন আমাদের নানী-দাদীরা করতেন, সেরকম আপনিও ঘরেই তৈরি করে নিতে পারেন হাতের ক্রিম।

গো’লাপ জল, তা’জা টমেটোর রস, তা’জা লেবুর রস এবং সমপরিমাণ গ্লিসারিন মিশিয়ে নিন। এবার তৈরি হয়ে গেল প্রাকৃতিক হ্যান্ড ক্রিম। এখন হাতে যত বেশি ক্রিম ব্যবহার করবেন, আপনার স্বাস্থ্যের জন্য ততটাই মঙ্গল হবে।