• ঢাকা
  • রবিবার, ২০শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১০ই জিলকদ, ১৪৪২ হিজরি

রাত ৪:১৯

যেসব দেশে সূর্য ডোবে না তারা যেভাবে রোজা রাখে


Share with friends

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে রোজার সময় কোথাও বেশি, কোথাও কম। তবে ২৪ ঘণ্টা দিন থাকায় অনেক জায়গায় রোজা রাখতে হয় সারাদিন। স্ক্যান্ডেনেভিয়া অঞ্চলের বেশ কয়েকটি জায়গায় দিন বড়,

রাত খুবই ছোট। কোথাও ২৪ ঘণ্টাই দিন থাকে। নরওয়ে, ফিনল্যান্ড, সুইডেন, আলাস্কা, আইসল্যান্ড ও কানাডাসহ কিছু অঞ্চল আছে যেখানে বছরের এই সময়টাতে সূর্যই অস্ত যায় না।

এমন দেশ ও অঞ্চলের মু’সলিম’রাও দিনের আলোতেই রোজা পালন করে থাকেন। কিন্তু কী’’ভাবে তারা রোজা পালন করেন? দ্য ইস’লামিক ইনফরমেশন ডট’কম ও আল-জাজিরার তথ্য মতে কয়েকটি দেশ ও কিছু কিছু অঞ্চলে দীর্ঘদিন ধরে সূর্য ডোবে না।

সূর্য অস্ত গেলেও দেখা যায় দিনের আলো। এসব দেশ ও অঞ্চলগুলো হলো- নরওয়ে, ফিনল্যান্ড, সুইডেন, আলাস্কা, আইসল্যান্ড ও কানাডা। এসব দেশ ও দেশগুলোর কিছু কিছু অঞ্চলে দীর্ঘদিন ধরে সূর্য ডোবে না।

সেসব দেশের মু’সলিম’রাও যথারীতি রমজানের রোজা পালন করে থাকেন। সাহরি ও ইফতার করেন। যেভাবে সাহরি ও ইফতার করেন তারা যেসব অঞ্চলে সূর্য ভালো’ভাবে ডোবে না।

দিনের আলো দেখা যায়। তারা পার্শ্ববর্তী দেশের সাহরি ও ইফতারের সঙ্গে মিল রেখে রোজা পালন করে থাকেন। পার্শ্ববর্তী দেশের সাহরির সময় সাহরি করেন এবং ইফতারের সময় ইফতার করেন। তাদের হিসাবের সঙ্গে মিল রেখেই রোজা শুরু করেন এবং ঈদুল ফিতর উদযাপন করেন।

এসব দেশের মু’সলিম’দের করণীয় স’ম্পর্কে ফতোয়া দিয়েছেন ইউরোপিয়ান কাউন্সিল অব ফতোয়া অ্যান্ড রিসার্চ (ইসিএফআর)। তাদের ঘোষণা হলো- এসব দেশ ও অঞ্চলে বসবাসরত অধিকাংশ মু’সলিম পার্শ্ববর্তী যেসব দেশে রাত-দিন সংঘঠিত হয়;

সেসব দেশের রাত-দিন ও সময়ের সঙ্গে মিল রেখেই সাহরি ও ইফতার করবেন। ইসিএফআর সংগঠনটির মহাসচিব হুসেইন হালাওয়াকে একবার কিরুনার মু’সলিম’রা রমজানে আমন্ত্রণ জানান। তিনি সেখানে যান এবং দীর্ঘ দিনের রোজার অ’ভিজ্ঞতা দেখেন।

সেখানে তিনি ইফতার ও সাহরিতে স্ট’কহোমের সময় অনুসরণ করেন। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন- ‘এটা নিকটবর্তী শহর, যেখানে রাত আর দিন আছে। চলুন জেনে নেয়া যাক কোন দেশ ও অঞ্চলে দীর্ঘ সময় সূয ডোবে না- নরওয়ে নিশিথ সূর্যের দেশ বা মধ্যরাতের সূর্যের দেশ হলো নরওয়ে।

অ’তি উচ্চ ভূ-প্রাকৃতিক অবস্থানের কারণে রাতেও সূর্যের আলো দেখা যায়। দেশটিতে মে থেকে জুন পর্যন্ত টানা ৭৬ দিন পর্যন্ত কখনও সূর্য ডোবে না। তবে সেখানে ২০ ঘণ্টা সূর্যের আলো খুব বেশি থাকে আর ৪ ঘণ্টা সূর্যের আলো কিছুটা নিমজ্জিত থাকে।

আইসল্যান্ড আইসল্যান্ডে কখনও সূর্য সম্পূর্ণ ডোবে না। এখানে সারারাত দিগন্তজুড়ে অনুভূমিকভাবে সূর্য পরিভ্রমণ করে। ইউরোপের এই বিশাল আইসল্যান্ড মে মাস থেকে জুলাই মাস পর্যন্ত অন্ধকার দেখতে পায় না।

গ্রীষ্মের সময় এখানে মধ্য রাতে সূর্য অস্ত যায় এবং ভোর ৩টায় আবার সূর্যোদয় হয়। ফিনল্যান্ড দেশটির বেশীরভাগ অঞ্চলে গ্রীষ্মকালে টানা ৭৩ ঘণ্টা সূর্য ডোবে না। দেশের অবস্থান এমন যে, শীতকালে দেশের নাগরিকরা সূর্যের আলো থেকে বঞ্চিত হয় আবার সূর্য ওঠলে যেন তা আর ডুবতে চায় না।

আবার সূর্য ডুবলে তা আর ওঠতে চায় না। কানাডা কানাডার ইনুভিক এবং উত্তর-পশ্চিম অঞ্চলগুলোর মধ্যে কিছু জায়গায় গ্রীষ্মের সময় প্রায় টানা ৫০ দিন সূর্যের আলো দেখা যায়।

দেশটি সারা বছরই তুষারে ঢাকা থাকে। সুইডেন মে মাস থেকে আগস্টের শেষ পর্যন্ত এখানে প্রায় মধ্যরাতে সূর্য ডোবে। ভোর ৪ টায় সূর্য ওঠে। সেখানে ৬ মাস সূর্য ওঠার সময় দীর্ঘ হয় আবার বাকি ৬ মাস সূর্য ডোবার সময় দীর্ঘ হয়।

আলাস্কা এ অঞ্চলে মে মাসের শেষ থেকে জুলাই মাস পর্যন্ত এখানে সূর্য ডোবে না। আর্কটিক অক্ষের দক্ষিণে আলাস্কা শহর অবস্থিত। শুধু এসব দেশেই নয়, বিশ্বের যেসব দেশে সূর্য ডোবে না।

সেসব দেশে বসবাসরত মু’সলিম’রা পাশ্ববর্তী দেশের রাত-দিনের হিসাব অনুযায়ী সাহরি ও ইফতার করবে। সে দেশের চাঁদের হিসাব অনুযায়ী রোজা রাখা এবং ঈদ উদযাপন করবে।