• ঢাকা
  • শনিবার, ১৯শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৫ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ৯ই জিলকদ, ১৪৪২ হিজরি

বিকাল ৩:১৮

রমজানে মক্কা-মদিনায় ১০ রাকাত তারাবি পড়ানোর ঘোষণা


Share with friends

বৈশ্বিক মহামা’রি করো’নাভাই’রাস পরিস্থিতির কারণে হারামাইন শরিফাইন তথা ম’সজিদে হারাম ও ম’সজিদে নববিতে এ বছর তারাবির নামাজ ১০ রাকাত পড়ানোর ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া আরও বেশকিছু নতুন সিদ্ধান্ত গ্রহণের কথাও জানানো হয়েছে।

গতকাল সোমবার বাদ এশা এক সংবাদ সম্মেলনে আসন্ন রমজানে তারাবি ও অন্যান্য বিষয়ে গৃহীত সিদ্ধান্ত স’ম্পর্কে এই ঘোষণা দেন হারামাইন প্রেসিডেন্সির প্রধান শায়খ আবদুর রহমান আস সুদাইস। সংশ্লিষ্ট কর্মক’র্তারা নিজ নিজ বাসা থেকে ভিডিও কনফারেন্সে ওই সংবাদ সম্মেলনে যু’ক্ত ছিলেন।

শায়খ সুদাইস বলেন, বর্তমান বিশ্ব যেহেতু করো’নার অদৃশ্য থাবায় আ’ক্রান্ত, তাই সামগ্রিক দিক বিবেচনা করে ম’ক্কা-ম’দিনাবিষয়ক অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে রমজান সংশ্লিষ্ট কিছু নতুন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে।

এসব সিদ্ধান্ত শুধুমাত্র ম’সজিদে হারাম ও ম’সজিদে নববীর জন্য। দেশের অন্য ম’সজিদের ক্ষেত্রে সরকারের দেওয়া পুরোনো সিদ্ধান্ত বহাল থাকবে।

এগুলো হলো-

১/ সীমিত সংখ্যক মু’সল্লির অংশগ্রহণে রমজানে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ, তারাবি ও শেষ ১০ দিন তাহাজ্জুদের (কিয়ামুল লাইল) জামাত চলবে।

২/ ই’মাম-মোয়াজ্জিন, সংশ্লিষ্ট কর্মক’র্তা-কর্মচারী ও অনুমোদিত ব্যক্তি ছাড়া অন্যদের প্রবেশ নিষিদ্ধ।

৩/ যাবতীয় ইফতার আয়োজন ও পরিবেশনা স্থগিত। তার পরিবর্তে ম’ক্কা-ম’দিনা জুড়ে প্যাকেটজাত ইফতার বিতরণের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

৪/ ইতেকাফের কোনো ব্যবস্থাপনা থাকছে না।

৫/ ২০ রাকাতের স্থলে তারাবি হবে পাঁচ সালামে মোট ১০ রাকাত।

৬/ প্রতিদিন দুজন ই’মামের একজন তারাবির প্রথম ছয় রাকাত এবং অ’পরজন বেতরসহ অবশিষ্ট চার রাকাত নামাজ পড়াবেন।

৭/ প্রত্যেক তারাবিতে কোরআনে কারিমের শুরু হতে সুনির্দিষ্ট একটি অংশ তেলাওয়াত করা হবে।

৮/ শেষ ১০ দিনের তাহাজ্জুদে তারাবিতে পঠিত তেলাওয়াতের ধারাবাহিকতা বহাল থাকবে এবং ২৯ রোজায় কোরআন খতম করা হবে।

৯/ বেতরের নামাজে কুনুতের দোয়া সংক্ষেপ তবে অর্থবহ করে উপস্থাপন করা হবে।

১০/ উম’রার স্থগিতাদেশ পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত বলবৎ থাকবে।

উল্লেখ্য, সৌদি আরবে করো’নাভাই’রাস শনাক্ত হওয়ার পর গত ২৬ ফেব্রুয়ারি বহিরাগত ওম’রার ভিসা বন্ধ করে দেওয়া হয়।

আ’ক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে থাকায় সব ধরনের জনসমাগম নিষিদ্ধ ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়। সর্বশেষ ১৭ মা’র্চ দেশটির সকল ম’সজিদে জুমা ও জামাত স্থগিত ঘোষণা করা হয়।

সৌদি আরবের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ড. আবদুল আলীর দেওয়া সর্বশেষ তথ্যমতে, দেশটিতে করো’নায় আ’ক্রান্তের সংখ্যা ১০ হাজার ৪৮৪ জন, আর মৃ’তের সংখ্যা ১০৩ জন।